মেয়ের ফাঁসি চাইলেন বাবা

ঢাকার দক্ষিণখানে সরদার বাড়ি জামে মসজিদে ছয় টুকরো করে আজহারকে হত্যার ঘটনায় মেয়ে আসমার ফাঁসি চাইলেন বাবা আশরাফ আলী। তার বাড়ি টাঙ্গাইল সদর উপজেলার মগড়া ইউনিয়নের কুইজবাড়ি গ্রামে।আশরাফ আলী জানান, ছয় টুকরো করে হত্যা করার বিষয়টি হৃদয় বিদারক, কষ্টদায়ক ও ন্যাক্কারজনক। এমন ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই। আমার মেয়ে আসমা যদি এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকে তাহলে তার ফাঁসি দাবি করছি। দুষ্টু গরু থাকার চেয়ে শূন্য গোয়াল অনেক ভালো।তিনি আরো জানান, আসমার তৃতীয় বিয়ে হওয়ার পর থেকে আমাদের সঙ্গে তার কোনো যোগাযোগ ছিল না। গত বছর ঈদে আমাদের বাড়ি আসছিল সে। এরপর আর কোনো যোগাযোগই ছিল না। গত রোজার ঈদের আগে আসমার স্বামী যখন অসুস্থ হয়ে হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি ছিল তখন থেকে আবার যোগাযোগ শুরু হয়।

লাশ উদ্ধারের দিন প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমাকে হত্যার বিষয়টি জানায়। কে এই হত্যার সঙ্গে জড়িত তা কিছুই বলেনি তারা। পরে মেয়েকে নিয়ে গাড়ি ভাড়া করে ঢাকায় যাই। যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে র্যা ব আমাদের আলাদা করে একটি ঘরে বসিয়ে রাখে। সেখানে কথা বলার পরদিন আমাকে ছেড়ে দেয়। এরপর আসমা ও ইমামকে আদালতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। আসমার ছেলে আরিয়ান সিকদারকে আমার হেফাজতে দিয়েছে র্যা ব। আরিয়ান এখন আমাদের হেফাজতেই রয়েছে।

আশরাফ আলী জানান, তার পাঁচ সন্তান, তিন ছেলে ও দুই মেয়ে। সন্তানদের মধ্যে আসমা দ্বিতীয়। ২০১৪ সালে পার্শ্ববর্তী দুর্গাপুর গ্রামে এক ছেলের সঙ্গে আসমার বিয়ে হয়েছিল। কিন্তু সেই বিয়ের পরদিন আসমা চলে আসে স্বামীর সংসার ছেড়ে। ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে কালিহাতীর এলেঙ্গা রাজাবাড়ি জুলহাস উদ্দিনের ছেলে সাহাবুদ্দিনের সঙ্গে আসমার বিয়ে হয়। বিয়ের ছয় মাস যেতে না যেতেই আসমা ও সাহাবউদ্দিনের ছোট ভাই আজহারুল বাড়ি থেকে উধাও হয়ে যায়। পরে তিনি জানতে পারেন সাহাবুদ্দিনকে তালাক দিয়ে আসমা আজহারুলকে বিয়ে করেছেন। এরপর থেকে তাদের সঙ্গে আর যোগাযোগ রাখেনি পরিবারের লোকজন