শেখ হাসিনা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ভাবে নাটক

দেখা গেছে, কয়েক দিন ধরে খুলনা ও রাজশাহী বিভাগের জেলাগুলোতে মৃত্যু বেশি হচ্ছে। এ দুই বিভাগের ১৮ জেলার মধ্যে ১০টিতেই আইসিইউ সুবিধা নেই।রাজশাহী বিভাগের চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নওগাঁ, নাটোর, পাবনা, সিরাজগঞ্জ ও জয়পুরহাট সদর হাসপাতালে আইসিইউ সুবিধা নেই।

গত বছরের আগস্ট মাসে ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট নওগাঁ জেনারেল হাসপাতালে আইসিইউ ইউনিট স্থাপনের অনুমোদন দেয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। দুই মাস আগে আইসিইউ ইউনিটে দুটি শয্যা স্থাপনের জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম এসে পৌঁছালেও এখনো তা স্থাপন করা যায়নি।

নাটোর জেলা সদর হাসপাতালে আইসিইউ না থাকায় জটিল রোগীদের চিকিৎসা দেওয়া যাচ্ছে না। জেলা সদর হাসপাতালের সহকারী পরিচালক পরিতোষ কুমার রায় বলেন, আইসিইউর জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সঙ্গে যোগাযোগ করে যাচ্ছেন। কিন্তু সেখান থেকে বলা হচ্ছে এ মুহূর্তে তাঁদের হাতে আইসিইউ নেই। এ ছাড়া নাটোর সদর হাসপাতালে এখনো সেন্ট্রাল অক্সিজেন ব্যবস্থা চালু হয়নি। সেন্ট্রাল অক্সিজেন না থাকলে আইসিইউ চালানো যাবে না।

খুলনা বিভাগের চুয়াডাঙ্গা, ঝিনাইদহ, নড়াইল ও মাগুরা সদর হাসপাতালে কোনো আইসিইউ শয্যা নেই।

এছাড়া সবচেয়ে কম আইসিইউ শয্যা ময়মনসিংহ বিভাগে। এই বিভাগের ময়মনসিংহ জেলায় ১৩টি এবং জামালপুর সদর হাসপাতালে ২টি আইসিইউ শয্যা রয়েছে। নেত্রকোনা ও শেরপুর সদর হাসপাতালে আইসিইউ শয্যা নেই।

সিলেট বিভাগে আইসিইউ শয্যা রয়েছে ২১টি। এর মধ্যে সিলেট জেলায় ১৬টি ও মৌলভীবাজারে ৫টি আইসিইউ শয্যা রয়েছে। সিলেট বিভাগের সুনামগঞ্জ ও হবিগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতাল, দক্ষিণ সুরমা ও রাজনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং খাদিমপাড়া ৩১ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে আইসিইউ সুবিধা নেই।

২৫০ শয্যার কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের অবস্থা আরো ভয়াবহ। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হিসাবে এই হাসপাতালে চারটি আইসিইউ রয়েছে। কিন্তু হাসপাতাল–সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, এই হাসপাতালে আইসিইউ শয্যা থাকলেও আনুষঙ্গিক কোনো যন্ত্রপাতি নেই।