হেফাজতে ইসলামকে নিষিদ্ধ করার দাবি জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ সাংসদ শেখ ফজলুল করিম সেলিম

হেফাজতে ইসলামকে জঙ্গি সংগঠন উল্লেখ করে সংগঠনটিকে নিষিদ্ধ করার দাবি জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ সাংসদ শেখ ফজলুল করিম সেলিম। তিনি বলেছেন,মানুষ মেরে এরা ইসলামকে হেফাজত করবে কীভাবে? যেভাবে জঙ্গিদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স দেখানো হয়েছে, সেভাবে এদের বিরুদ্ধেও জিরো টলারেন্স দেখাতে হবে।আজ সোমবার জাতীয় সংসদে ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে শেখ সেলিম এ দাবি জানান।

শেখ সেলিম বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে বিএনপি, জামায়াত, হেফাজত দেশের বিভিন্ন স্থানে তাণ্ডব চালিয়েছে। তাদের উদ্দেশ্য ছিল সরকারের পতন। স্বাধীনতা দিবস ওরা সহ্য করতে পারে না, ওদের বুকে ব্যথা লাগে। কথা নাই, বার্তা নাই বায়তুল মোকাররমে জমা হয়ে তাণ্ডব চালায়। সেখানে মুসল্লিরা নামাজ পড়তে পারেন না। বায়তুল মোকাররমে এ ধরনের সমাবেশ নিষিদ্ধ করা উচিত। তারা বায়তুল মোকাররমকে প্ল্যাটফর্ম বানিয়েছে। নেজামে ইসলাম পার্টি এক সময় স্বাধীনতাবিরোধী ছিল।

১৯৭১ সালে এ দলটি আল শামস বাহিনী ছিল। পরে তারা খেলাফত মজলিস নামে দল হয়, এখন হয়েছে হেফাজতে ইসলাম।’শেখ সেলিম প্রশ্ন রেখে বলেন,মানুষ মেরে এরা ইসলামকে হেফাজত করবে কীভাবে? এটা জঙ্গি সংগঠন, এ সংগঠনকে নিষিদ্ধ করা হোক। যেভাবে জঙ্গিদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স দেখানো হয়েছে, সেভাবে এদের বিরুদ্ধেও জিরো টলারেন্স দেখাতে হবে।আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর এই সদস্য বলেন, আমাদের মাদ্রাসাগুলোতে জাতীয় সংগীত গাওয়া হয় না, জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয় না। এ বিষয়ে চিন্তা-ভাবনা করা উচিত।