জিয়াউর রহমানকে ‘খলনায়ক’ বানানোর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত আওয়ামী লীগ: মির্জা ফখরুল

আওয়ামী লীগ দেশের মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস বিকৃত করে এখন জিয়াউর রহমানকে ‘খলনায়ক’ বানানোর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমানের দেহাবশেষ দেশে ফিরিয়ে আনা এবং বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ভূমিকা’ শীর্ষক এক ভার্চুয়াল আলোচনায় আজ শুক্রবার রাতে বিএনপিনেতা এ মন্তব্য করেন।বিএনপিকে স্বাধীনতার সপক্ষের শক্তি ও দল উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগ জোর করে একদলীয়ভাবে ক্ষমতায় টিকে আছে। এ ছাড়া ক্ষমতাসীনরা দেশের অনেক প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধার ভূমিকা ও স্বীকৃতি মূল্যায়ন করেনি বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘আজকে যারা সরকারে বসে আছেন, জোর করে ক্ষমতা দখল করে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর মতোই মানুষের সব অধিকার খর্ব করে দিয়ে। ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধের যে একটি চেতনা ছিল, একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা, তাকে ধ্বংস করে, মানুষের আশা-আকাঙ্ক্ষাকে ভূলণ্ঠিত করে দিয়ে একটা একদলীয় শাসন ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার করার জন্য তারা মানুষের ওপর অন্যায় অত্যাচার চালিয়ে যাচ্ছে। শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান সাহেবকে, যিনি স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছিলেন, তাঁকে তো তারা খলনায়ক হিসেবে প্রতিষ্ঠা করবার জন্য যত রকমের বিকৃত ইতিহাস আছে সেটা তারা ক্যাম্পেইন শুরু করেছে।

জনগণকে বিভ্রান্ত করতেই সরকার চিত্রনায়িকা পরী মণির ইস্যুকে সামনে নিয়ে এসেছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, ‘এই যে দেখেন সাংবাদিক ভাইয়েরা, খুব লাফালাফি হচ্ছে এখন। ইস্যুটা হচ্ছে পরী মণি। হু ইজ পরী মণি? আমরা কী বুঝি না যে, আপনার (সরকার) আবার সেই ডাইভারসান, আবার সেই অন্যদিকে নিয়ে যাওয়া। প্রতি মুহূর্তে জনগণকে বিভ্রান্ত করা প্রতারণা করা, মিথ্যাচার করা—এটাই হচ্ছে কিন্তু ওদের (ক্ষমতাসীন) মূল কাজ। তারা মানুষকে বিভ্রান্ত করবে মানুষকে ভুলপথে নিয়ে যাবে।আর আরেক ঘটনার অপরাধে তাঁকে (জাতীয় পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও ব্যবসায়ী নাসিরউদ্দিন মাহমুদ) গ্রেপ্তার করে নিয়ে সাত দিন রিমান্ডে। আমি বুঝিনি, সত্যি বলছি আমি বুঝতে পারিনি ব্যাপারটা।