পরীমনির জন্য পুলিশের ম্যাজিক অন্যদের জন্য নয় কেনো

অ্যানালাইসিস বিডি ডেস্ক

চিত্র নায়িকা পরীমনির একটি কথা এখন বেশ আলোচনায়। আর তা হলো পুলিশ ম্যাজিকের মত কাজ করেছে।” কিন্তু প্রশ্ন উঠেছে অন্যদের জন্যও কি পুলিশ ম্যাজিকের মত কাজ করছে অতি সম্প্রতি কলেজ ছাত্রী মুনিয়ার আত্মহত্যায় প্ররোচণার ঘটনায় কিন্তু সেই ম্যাজিক দেখা যায়নি। পরীমনি ধর্ষণ এবং হত্যাচেষ্টার মামলাটি দায়ের করা হয় সোমবার( ১৪ জুন) সকালে সাভার থানায় আর ব্যবসায়ী নাসির ইউ মাহমুদসহ ৫ জনকে আটক করা হয় ওই দিন দুপুরেই উত্তরা এলাকা থেকে। তাদের গ্রেপ্তারে সাভার থানা পুলিশের জন্য অপেক্ষা করা হয়নি।

ডিএমপির গোয়েন্দা বিভাগ গ্রেপ্তার করে তাদের বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলা দিয়ে রিমান্ডে নেয়। এখনো মূল মামলায় সাভার থানা পুলিশ তাদের জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেনি।গোয়েন্দা বিভাগ ওই মামলার তদন্তকারী না হলেও তারা ধর্ষণ এবং হত্যাচেষ্টার মামলায় জিজ্ঞাসাবাদ করছে। তবে এখনো নিশ্চিত নয় পরীমনির মামলায় তদন্ত কোন দিকে যায়। কারণ এরইমধ্যে পরীমনির বিরুদ্ধে গুলশানের অল কমিউনিটি ক্লাবে ভাঙচুরের অভিযোগে জিডি করা হয়েছে। তারও তদন্ত শুরু হয়েছে।

এই সময়ে আরেকটি আলোচিত ঘটনা কলেজ ছাত্রী মোশারাত জাহান মুনিয়ার আত্মহত্যা। গত ২৭ এপ্রিল গুলশানের একটি ফ্ল্যাট থেকে কলেজ ছাত্রী মোশারাত জাহান মুনিয়ার লাশ উদ্ধার করা হয়। এই ঘটনায় আত্মহত্যায় প্ররোচণার অভিযোগে গুলশান থানায় বসুন্ধরা গ্রুপের এমডি সায়েম সোবহান আনভীরের বিরুদ্ধে মামলা হয়। পুলিশ শুরুতে প্ররোচণার প্রমাণ পাওয়ার কথা বললেও এখন চুপসে গেছে। দেড় মাসের বেশি সময় পার হয়ে গেলেও আসামিকে আইনের আওতায় আনা হয়নি।

গোয়েন্দা বিভাগের যুগ্ম কমিশনার হারুন অর রশীদ বলেছেন, গুলশান থানা যদি লিখিত অনুরোধ জানায় তাহলে মুনিয়ার ঘটনায় আসামিকে তারা গ্রেপ্তার করবে। পরীমনির ঘটনায় আসামিদের গ্রেপ্তারে তিনি নেতৃত্ব দেন।কিন্তু গুলশান জোনের ডেপুটি পুলিশ কমিশনার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী এর আগে বলেছেন,“আমরা প্ররোচনার বিষয়ে তথ্য প্রমাণ সংগ্রহে এখনো কাজ করছি। আইনে গ্রেপ্তারে কোনো বাধা না থাকলেও নিশ্চিত হয়েই গ্রেপ্তার করতে চাই।” আর বহুল আলোচিত সাগর-রুনি সাংবাদিক দম্পতি হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের সাড়ে ৯ বছরেও চিহ্নিত করা যায়নি।